বৃহস্পতিবার , ৩রা ডিসেম্বর, ২০২০ ইং , বাংলা: ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , হিজরি: ১৬ই রবিউস-সানি, ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

ভাণ্ডারিয়ায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দূর্ণীতির অভিযোগ

ভাণ্ডারিয়ায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দূর্ণীতির অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি || পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়া উপজেলার নদমুলা শিয়ালকাঠী ইউনিয়নের ২০ নম্বর দক্ষিণ চরখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুল হোসেন এর বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি বিদ্যালয়ের গাছ টেন্ডারের ও উপবৃত্তির টাকা আত্মসাৎ সহ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটি গঠনে অনিয়ম এবং ভুয়া জমিদাতা দিয়ে এডহক কমিটি গঠন করে বর্তমানে ক্ষুদ্র মেরামতের অর্থ আত্মসাৎ করে বলে অভিযোগ রয়েছে। গত ২০ সেপ্টেম্বরে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে এসব দূর্ণীতির অভিযোগ এনে বিদ্যালয়ের অভিভাবক সদস্য আল আমিন হিরু ও সাবেক অভিভাবক সদস্য কিসলু হাওলাদার স্থানীয় ও অভিভাকদের গণ-স্বাক্ষর সম্বলিত লিখিত অভিযোগ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বরাবরে দিলে গত ২৫ অক্টোবার ভাণ্ডারিয়া সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ নজরুল ইসলাম মোল্ল্যা ওই বিদ্যালয়ে (২৯ অক্টোবার) দিন ধার্য্য করে তদন্তের জন্য নেটিশ দেয় এবং ওইদিন সোমবার সকালে সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ নজরুল ইসলাম মোল্ল্যা, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ কামাল হোসেন ও সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ এমাদুল হক উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে ঘটনার বিষয়ে শুনানী সহ তদন্ত করে। ওই বিদ্যালয়ের অভিভাবক সদস্য আল আমিন হিরু বলেন, রহস্যময় তদন্ত হচ্ছে। কারণ, তদন্তের জন্য যে অফিসার আমাদের নোটিশ করেছেন সেই সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ নজরুল ইসলাম মোল্ল্যা তদন্ত করছেন।

অন্যদিকে অত্র বিদ্যালয়ের বর্তমান এডহক কমিটির দ¦ায়িত্বে নিয়োজিত সভাপতি সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ কামাল হোসেনও তদন্ত বোর্ডের সদস্য রাখা হয়েছে। হিরুর অভিযোগ, দূর্ণীতিবাজ প্রধান শিক্ষককে বাচাঁতে একটি অদৃশ্য শক্তি কাজ করছে। তবে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুল হোসেন তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বিকার করেন।
এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ নাসিরুদ্দিন খলিফা মুঠোফোনে বলেন, নিয়ম অনুযায়ী স্বচ্ছ ভাবে তদন্তের কাজ চলছে। সহকারী শিক্ষা অফিসার নজরুল ইসলাম মোল্ল্যাকে আহবায়ক করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির অপর সদস্য মোঃ কামাল হোসেনকে নিয়ে কোন অভিযোগ থাকলে প্রয়োজনে নতুন করে তদন্ত করা হবে।

এমন আরো খবর:

error: লেখা সংরক্ষিত!