শনিবার , ২৮শে মার্চ, ২০২০ ইং , বাংলা: ১৪ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , হিজরি: ৩রা শাবান, ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

শিক্ষিত দক্ষ প্রযুক্তি নির্ভর মানবিক প্রজন্ম গড়ে তোলা হবে-ড. আবদুল ওয়াদুদ

শিক্ষিত দক্ষ প্রযুক্তি নির্ভর মানবিক প্রজন্ম গড়ে তোলা হবে-ড. আবদুল ওয়াদুদ

পিরোজপুর-২ আসনের আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী আবদুল ওয়াদুদ পিরোজপুর টাইসকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারের বিশেষ অংশগুলো তুলে ধরা হলঃ

পিরোজপুর-২ (ভাণ্ডারিয়া-কাউখালী-ইন্দুরকানী) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে চান সাবেক ছাত্রলীগ নেতা.  ড.আবদুল ওয়াদুদ।

তিনি আওয়ামীলীগে নতুন মুখ এমন এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেনঃ  আমি আওয়ামীলীগে নতুন কোন মুখ নই আমি হাইব্রীড নই আমি আওয়ামীলীগ করি আমি মনে প্রাণে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ একজন সৈনিক। আমি ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের জহুরুল হক হলের-২১১ নম্বার রুমে থাকতাম।১৯৯৫ সালে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলাম।  জহুরুল হক হলের ছাত্রলীগের ক্রিড়া সম্পাদক ছিলাম।

১৯৮৪ সালের ২৮ সে ফেব্রুয়ারী এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে অগ্রভাগে ভুমিকা ছিল আমার। আন্দোলনে সেলিম-দেলোয়ার ট্রাকের চাপায় নিহত হয় আমিও সেই ট্রাকের চাপায় আমার বাম পা থেতলে যায়।দীর্ঘ দিন আমি বিছানায় ছিলাম।সেদিন আমি প্রাণে বেঁচে যাই।

আমি আন্দোলন সংগ্রামে সব সময় ছিলাম এবং থাকব।সেদিন ছিল আওয়ামীলীগের জন্য একটি দু:সময় সেদিনও আমি আওয়ামীলীগের পাশে ছিলাম আজও আওয়ামীলীগের দু:সময় কারন বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে লালন করে জননেত্রী শেখ হাসিনা উন্নয়নের যে নজির স্হাপন করেছেন পৃথিবীর ইতিহাসে    স্বাধীনতার পরে এত বেশী উন্নয় বিরল।কারন এত বড় বড় প্রকল্প শুধু শেখ হাসিনাই পারে।

দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা চলছে এটাকে বিনষ্ট করার জন্য,আওয়ামীলীগকে ক্ষমতা থেকে বিচ্ছিন্ন করার জন্য আগুন সন্ত্রাসী দল আবার মাঠে নেমেছে। তাই বসে থাকার সময় নেই আওয়ামীলীগকে আবার ক্ষমতায় আনতে হবে।সবাইকে একত্রিত হয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরও শক্তিশালী করতে হবে।

নির্বাচনী এলাকার মানুষের জন্য কি করবেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেনঃ  যুব সমাজকে নিয়ে আমি সাউথ বেঙ্গল বার্ড পার্ক করব যার মাধ্যমে প্রায় পঞ্চাশ হাজার যুবকের কর্ম সংস্হান হবে।  সবাইকে নিয়ে শিক্ষিত,দক্ষ একটা মানবিক প্রজন্ম গড়ে তোলা হবে।

সারাদেশে উপজেলা শহর গুলোতে বিশেষ করে আমার নির্বাচনী এলাকায় যুব সমাজকে নিয়ে ফিকামলি সেন্টার করা হবে ।যার মাধ্যমে এলাকার যুব সমাজ মরন নেশাসহ সকল খারাপ কাজ থেকে বিরত থাকবে।   দক্ষিঞ্চালনে একটা ক্যান্সার হাসপাতাল গড়ে তোলা হবে।

এলাকার মানুষের জীবন মান উন্নয়নে সকলকে নিয়ে কাজ করব।জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখব।

আপনি মনোনয়ন পেলে কি মহাজোটের হয়ে কাজ করবেন এমন প্রশ্নের জবাবে ড. আবদুল ওয়াদুদ বলেনঃ   মহাজোট থেকে নৌকা প্রতীক নিয়ে পিরোজপুর-২ আসনে যে আসবে তার সাথে আমি কাজ করব আমি মনোনয়ন পেলে আমার সাথে কাজ করবে সকলে।

এলাকায় উন্নয়ন কর্মকাণ্ড অব্যাহত রাখাসহ, শিল্প কারখানা এবং মানসম্মত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলব। এলাকার বেকারত্ব দূর করে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করব।

উল্লেখ্য ড. ওয়াদুদ তার কর্মময় জীবনে সামাজিক ও সমাজসেবা মূলক অনেক কাজ করে যাচ্ছেন। ১৯৮৫ সালে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন আবদুল ওয়াদুদ। এ ছাড়া জহুরুল হক হলের ক্রীড়া সম্পাদক ছিলেন। ১৯৯০-এর গণআন্দোলনে সক্রিয় ছিলেন তিনি।

ড. ওয়াদুদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর  ডিগ্রি অর্জন করেছেন।  দিল্লির জহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি করেন। তিনি ঢাকা সিটি কলেজের সহকারী অধ্যাপক এবং নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি, ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি, কুইন্স ইউনিভার্সিটি ও ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষকতা করেছেন।ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের জুডো ও ক্যারাতে প্রতিষ্ঠাতা প্রশিক্ষক ছিলেন।

এ ছাড়া তিনি ওয়াইল্ড লাইফ কনজারভেশন অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব। অটিজম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন, ফুল পাখি আর্ট, সাউথ বেঙ্গল বার্ড পার্কসহ বহু সামাজিক প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা। বর্তমানে ওয়ার্ল্ড ফুটবলার্স ফোরামের সভাপতি এবং প্লাটিনাম গ্রুপের মালিক।

ড. আবদুল ওয়াদুদ  ব্যায়াম,খেলাধুলা,উপন্যাসসহ প্রায় চল্লিশটি বইয়ের লেখক।  তার ফিকামলি থিউরি সুস্হতা ও ফিটনেশের জন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশের স্কুল,কলেজ,বিশ্ব বিদ্যালয়ের পাঠ্য বইয়ে অন্তভুক্ত ও সমাদৃত হয়েছে। ড.আবদুল ওয়াদুদ ভান্ডারিয়া সরকারী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আলহাজ্ব প্রফেসর আবদুল হালিম উকিল এর বড় ছেলে ।

সাক্ষাৎকার নিয়েছেন পিরোজপুর টাইস এর বার্তা  সম্পাদক জামাল হোসেন (জামান)

 

এমন আরো খবর: